নাগেশ্বরীতে ইসলামী ফাউন্ডেশনের শিক্ষক নিয়োগে ঘূষ বানিজ্য

মোঃ মসলেম উদ্দিন,নাগেশ্বরী ( কুড়িগ্রাম) ::

কুড়িগ্রামের নাগেশ্বরীতে ইসলামী ফাউন্ডেশনের মডেল সুপারভাইজার মফিজুল ইসলাম বাবুল ২০১৭সালে সরকারি ভাবে স্থাপিত দারুল আরকাম স্বতন্ত্র ইবতেদায়ী মাদরাসায় নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি দেখিয়ে পরীক্ষার প্রশ্ন ও চাকুরী দেওয়ার প্রলোভন দিয়ে নিজ উপজেলাসহ অন্যান্য উপজেলার প্রার্থীদের নিকট হতে লক্ষ লক্ষ টাকা হাতিয়ে নিয়েছে বলে অভিযোগ উঠেছে।

জানা গেছে নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি হওয়ার পর থেকেই প্রার্থীদের দারে দারে ঘুরে উপর মহলের সঙ্গে সাথে তার সু সম্পকের্র কথা বলে প্রার্থী ম্যানেজ করে। এক পর্যায়ে সহকারী শিক্ষক জেনারেল পদের প্রার্থী নেওয়াশী ইউনিয়নের মাজেদা খাতুনের নিকট হতে ২লক্ষ টাকা,কচাকাটা থানার বলদিয়া ইউনিয়নের রফিকুল ইসলামের নিকট হতে ২লক্ষ টাকা, এবং মসজিদ ভিত্তিক প্রাথমিক শিক্ষক নিয়োগের জন্য সন্তোষপুর ইউনিয়নের মোঃ আলতাফ হোসেনের নিকট থেকে ১লক্ষ টাকা সহ দারুল আরকাম স্বতন্ত্র ইবতেদায়ী মাদরাসায় শিক্ষক নিয়োগের জন্য অন্য উপজেলার প্রার্থীদের নিকট হতে প্রায় ত্রিশ লক্ষ টাকা ষুষ বাবদ বানিজ্য করেছে মডেল মফিজুল ইসলাম।

প্রকল্পের মেয়াদ শেষ হওয়ার পরেও নিয়োগ দিতে না পারায় প্রার্থীগণ টাকার জন্য চাপ সৃষ্টি করলে সে গোপনে অফিস করছে। টাকা দেওয়ার ভয়ে নিয়মিত অফিস করছেনা এবং সপ্তাহে ২/৩দিন অফিস করছে বলে জানাগেছে। এছাড়াও প্রার্থীগণ ঘুষের টাকার জন্য মফিজুলকে মাঝে মধ্যে আটকিয়ে রাখে। পরে স্থানীয় মহৎগনের সহায়তায় ঘুষের টাকা ফেরত দেওয়ার নামে মুছলেখা দিয়ে চলে যায়।

এছাড়াও অফিসের দাপ্তরিক বিভিন্ন কাজে অসংখ্য দুর্নীতির অভিযোগ উঠেছে। এ ব্যাপারে চাকুরী প্রার্থী রফিকুল ইসলাম বলেন লিখিত পরীক্ষায় পাশ না করা সত্যেও আমাকে চাকুরী দেয়ার আশ্বাস দিয়ে আসছিল, ঋন করে টাকা দিয়েছি বর্তমানে ঋনের বোঝা নিয়ে বিপদে আছি। প্রার্থী মাজেদা খাতুন বলেন ৩ বছর পুর্বে জমি বন্ধক রেখে টাকা দিয়েছি চাকুরীও নাই টাকাও নাই চিন্তিত আছি। মডেল সুপার ভাইজার মফিজুলের সাথে মোবাইলে যোগাযোগ করার চেষ্টা করলে সংযোগ পাওয়া যায়নি।