সিরাজদিখান বালুচর,বেতকা রাস্তায় খানাখন্দে ভরা,চলাচলে ভোগান্তি

১৯৭ Views

আব্দুল্লাহ আল মাসুদ ::

মুন্সীগঞ্জের সিরাজদীখান থেকে বালুচর হয়ে বেতকা ব্রিজ পর্যন্ত দীর্ঘদিন সংস্কার না করায় সড়কটির অধিকাংশ স্থানে খানাখন্দে ভরে গেছে। এতে এ সড়কটি দিয়ে চলাচলকারী তিন উপজেলার হাজারো মানুষ ভোগান্তির শিকার হচ্ছে। একটু বৃষ্টি হলেই এ সড়ক দিয়ে হাঁটাচলা করা যায় না।

শনিবার সরেজমিন দেখা যায়,উপজেলার রামানন্দ, নতুন ভাষানচর, বালুচর বাজার, খাসনগর, কৃষ্ণনগর সহ বিভিন্ন স্থানে সড়কের কার্পেটিং উঠে ইটের খোয়া বের হয়ে গেছে। কোথাও কোথাও বড় বড় গর্তের সৃষ্টি হয়ে পানি জমে আছে। সড়কে একটি গাড়ি আরেকটিকে অতিক্রম করতে পারছে না। সড়কটিতে দুটি ব্রিজে মুখেও গর্তের সৃষ্টি হয়েছে।

জানা যায়, এ সড়ক দিয়ে প্রতিনিয়ত দুর্ঘটনার সৃষ্টি হচ্ছে। মাঝেমধ্যেই অটোরিকশা উল্টে আহত হচ্ছে চালক ও যাত্রীরা। এই সড়ক দিয়ে চলাচলকারী চালক ও যাত্রীরা ভোগান্তি নিয়ে চলাচল করছে ।

এই রাস্তা দিয়ে চলা পথচারী আহসান উল্লাহ জানান, আমি প্রতিদিন এই রাস্তা দিয়ে বালুচর বাজারে যাই, আমি একটি দোকানে কাজ করি, এ রাস্তা দিয়ে চলাচল করা খুবই কষ্টদায়ক, একটু বৃষ্টি হলেই এ রাস্তা দিয়ে হাটা চলা যায় না। রাস্তার ময়লা পানি ছিটকে আসে শরীরে, কাপড় নষ্ট হয়ে যায়, এ রাস্তাটি অতি দ্রুত কাজ করা দরকার।

অটোরিকশা চালক মনির হোসেন বলেন, বালুচর বাজার থেকে বেতকা ব্রিজ পর্যন্ত রাস্তাটি অনেকদিন ধরেই বড় বড় গর্ত এবং ভাঙ্গাচুরা দিয়ে ভরা। এ রাস্তা দিয়ে আমরা গাড়ি চালিয়ে যেতে পারিনা।

মাঝেমধ্যেই গাড়ি উল্টে যায়। যাত্রী গাড়ি থেকে পড়ে যায়, কয়েকদিন আগেও গাড়ি উল্টে মহিলা সহ কয়েকজন আহত হয়েছে। এই রাস্তাটি তাড়াতাড়ি মেরামত করা উচিত। যদি সেটা না হয়, তবে এই সড়কে আরো দুর্ঘটনা ঘটতে পারে।

কৃষ্ণনগর খলিল মার্কেটের ব্যবসায়ী মোখলেছুর রহমান জানান, এই রাস্তা এতটাই গর্তে ভরা আমি আমার মোটরসাইকেল নিয়ে কয়েকদিন আগে পড়ে গেছি। এই রাস্তা দিয়ে চলাচল করা যায় না। প্রশাসনের কাছে দাবি অতি দ্রুত যেন এ রাস্তাটি মেরামত করে আমাদের সুন্দর একটি রাস্তা উপহার দেন।

উপজেলা প্রকৌশলী শোয়াইব বিন আজাদ বলেন,এই রাস্তাটির অফিসিয়াল কাজকর্ম শেষ হয়েছে। কোরবানি ঈদের পর কাজ শুরু করা হবে। সেসময় শুকনো মৌসুম থাকবে এর ফলে রাস্তার কাজ দ্রুত শেষ করা যাবে।