সিরাজদীখানে বাড়িঘর ভাঙচুর, জমি দখলের চেষ্টা

১১৯ Views

সিরাজদীখান প্রতিনিধি: :

সিরাজদীখানে ভূমি দস্যুদের থাবায় একটি পরিবার নির্যাচিত, বাড়িঘর ভাঙচুর, পুলিশের বাঁধায় জমি দখলের চেষ্টা বিফল। ঘটনাটি ঘটেছে বুধবার বেলা ১১ টার দিকে উপজেলার মধ্যপাড়া ইউনিয়নের বাহেরকুঁচি গ্রামে।

জানাযায়, বাহেরকুঁচি গ্রামের ঢালী আম্বার নিবাসের (রিসোর্ট) মালিক নজরুল ঢালীর লোকবল গিয়ে গতকাল একই গ্রামের ইদ্রিস মিয়ার ৩৫ শতাংশ জায়গা দখলে নেওয়ার চেষ্টা করে। এ সময় নজরুল ঢালীর লোকজন ইদ্রিস মিয়ার একটি বসতঘর ও বাড়ির পাশের টিনের বেড়া ভাঙচুর এবং বেশ কিছু কলাগাছ কেটে ফেলেছে।

এ সময় বাঁধা দিতে গিয়ে মারধরের স্বীকার হয় ইদ্রিস মিয়ার স্ত্রী পারভিন (৪৫) বেগম, মেয়ে এ্যানি আক্তার (২৪), ছেলে সাব্বির (১৯) ও বোন তাসলিমা (৪০)। খবর পেয়ে সিরাজদীখান থানা পুলিশ ঘটনাস্থল গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ আনে।

গত ৩ বছর আগে বাড়িটি কেনার প্রস্তাব দেয় নজরুল ঢালীর লোকজন। ইদ্রিস মিয়া বাড়ি বিক্রি করতে রাজি না হওয়ায় নির্যাতন ও অত্যাচারের স্বীকার হচ্ছে বলে অনেকে জানান। প্রায় ৩ বছর আগে ইদ্রিস মিয়া বাদী হয়ে আদালতে মামলা করেছেন।

ইদ্রিস মিয়া জানান, আমি ২০০৭ সালের বাড়ি কিনি। নিচু জমি ভরাট করেছি, ঘরবাড়ি করেছি গাছপালা লাগাইছি। এখন তারা এ জায়গা নিতে চায়, আমি না দেওয়ায় তারা অত্যাচার শুরু করেছে। তারা বর্তমানে ওয়ারিস বানাইয়া ঝামেলা করায় আমি আদালতে মামলা দিয়েছি। মামলা চলমান আছে।

ইদ্রিস মিয়ার স্ত্রী পারভীন বেগম জানান, মাসুম (৪০) হলো নজরুল ঢালীর মূল দালাল। তার নেতৃত্বে জগদিশ (৪৭), আক্তার (৩৮), আল আমিন (৩৫), মুন্না (২৯), মিজান (৪৬), নাসিম (৪২), রাজিব (২৬), আব্দুল (৪৫), গিয়াস উদ্দিন (৪৩) সহ শতাধিক লোকজন এসে আমাদের বাড়ি ভাঙচুর করে। বাড়ির বাউন্ডারির টিনের বেড়া ভেঙ্গে ফেলেছে। আমরা বাঁধা দিতে গেলে আমাদের ৪/৫ জনকে মারধর করে।

ছেলে সাজিদ (১৭) জানান, নজরুল ঢালী এলাকার ভূমি দস্যু। তাদের অত্যাচারে অনেকে জমি তার কাছে বিক্রি করেছে। আমাদের বিলে জমি সাধে, সাথে ৫ লাখ টাকা দিতে চায়, আমার বাবা এতে রাজী না হওয়ায় তার লোকজন আমাদের অত্যাচার করতেছে। এভাবে মানুষ বাঁচতে পারে না। আমাদের থাকার ঘর ভেঙে দিয়েছে তারা।

এই শীতের মধ্যে আমরা এখন কোথায় থাকবো। তারা অনেক ধনী ও মতাধর, তাদের বিরুদ্ধে কেউ কথা বলে না। থানায় আজ অভিযোগ দিয়েছি। পুলিশ আমাদের তেমন গুরুত্ব দেয় না। আমারা এখন মানবেতর জীবন যাপন করছি। আপনারা আমাদের বাঁচান।

ঢালীর লোক মাসুম জানান, মারামারি ভাঙচুর এমন কোন ঘটনা ঘটে নাই। আমার চাচা নজরুল ঢালীর জমির সীমানা নির্ধারণ করতে ছিলো। আমি তাই সেখানে গিয়েছি। কোন মহিলার গায়ে হাত দেই নাই। জমি কিনতে গেলে কি ভূমি দস্যু হয়ে যায় নাকি। আমাদের কাগজপত্র দেখতে পারেন। আর কোটে মামলা সেটা অন্য বিষয়।

সিরাজদীখান থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) এসএম জালাল উদ্দিন বলেন, খবর পেয়ে ঘটনাস্থল দেখেছি। কেউ আহত হয় নাই। একটি একচালা ঘর ভাঙ্গা আছে। দুই পই ঘর ও জায়গা দাবী করছে। কাগজপত্র নিয়ে কাল উভয়কেই আসতে বলেছি। এখন পরিস্থিতি স্বাভাবিক।